অনলাইন ইনকাম কি হারাম ??

এক ভাই এর অনলাইন ইনকাম ‍এর ব্যাপারে কিছু প্রশ্ন এবং আমার দেয়া কিছু জবাব। জানি অনেক ভুল আছে আমার কথা গুলো তে তবুও স্ট্যাটাস আকারে দিলাম । (Online Income)
.
একটা কাল্পনিক কথোপকথনঃ

– ভাই কি করেন ? 
= অনলাইনে আয় হালাল ভাবে আয় করি ।
– তো আপনি যে windows চালান, সেটা কি কিনেছেন ? 
= না । 
– এডোবির সফটওয়্যার গুলা ? ফটোশপ, আফটার ইফেক্ট…
= না ।
– ভিডিও এডিটিং এর সফটওয়্যার গুলা ? ক্যামটাসিয়া, ফিল্মোরা …? 
= না ।
– ভিডিও তৈরির সফটওয়্যার গুলা ? প্রসো, ভিডিও স্ক্রাইব…?
= না । 
– MS office ?
= না । 
– যে ফোন টা কিনেছেন সেটা কি অথোরাইজড ডিলার থেকে কেনা ? 
– না, অইখানে দাম বেশি, লাগেজ মালে ভ্যাট দিতে হয় না তাই দাম কম কিন্তু মাল অরজিনাল । 
– যাক IDM অই টা ?
– নাহ… 
– অই সকল সফটওয়্যার এর ক্রাক ও তো গ্রুপে গ্রুপে শেয়ার করে বেড়ান ? 
– জি মানুষের উপকার করি, মেইন কোম্পানিকে বাশ দিয়ে ।
– এই যে ফেসবুক/ গুগোলে কে টাকা দেন, দেশের মানি লন্ডারিং আইন অমান্য করে এটা কি দেশের আইন অনুসারে বৈধ ? 
= কিছু করার নাই। সবাই করে তাই আমিও করি, আমার টাকা আমি গুগোল না ফেসবুক কে দেব তাতে সরকারের কি ?

– তো এত এত ইললিগ্যাল জিনিস পাতি ইউজ করে আয় করেন তাহলে সেটা হালাল হয় কিভাবে ?

= কারন, আমি বস, আমি…… …… ……… ……
.
আমি ঃ অ্যাডসেন্স বাদ দিয়ে ( অ্যাডসেন্স এর ব্যাপরে আমি সন্দিহান ) – হালাল গ্রাফিক্স এর কাজ করুন অথবা অ্যাফিলিয়েট করুন হালাল প্রডাক্ট এর ( অামি অনলানে কেবল নতুন) । 
.
সেঃ হুম ঠিক তো আপনি কোন সেক্টরে কাজ শুরু করেছেন ?
.
আমিঃ টিশার্ট ডিজাইন ( ট্রায়াল এডোবি) উনডোজ ৭ এর পেইড কিওয়ার্ড দিয়েছে ( সে নিজের জন্য কিনেছিলো)
.
সেঃ ট্রায়েল শেষ হলে কি করবেন ? উইনডোজ ৭ এর কি সে নিজেও ব্যবহার করে ? সে কি মাল্টি ইউজার কিনেছিল নাকি সিঙ্গেল ? 
টি শার্ট ডিজাইনে কি ফ্রি মেথড এ কাজ করবেন নাকি পেইড ? পেইড হলে সরকারের মানি লন্ডারিং আইন মেনে ফেসবুকে এ বুস্ট করছেন ? 
MS Word কি কিনেছনে ? আই ডি এম ?
.
আমিঃ সে মাল্টির টা কিনেছিলো – এক জিমেইল এর অান্ডারে অনেক দিন ট্রায়াল দেয় – অ্যামাজন টি-শার্ট এর জন্য মার্কেটিং লাগে না – অার যারা অ্যাফিলিয়েট করে অায় করবে তাদের তো বিশেষ কোন সফ্টায়র লাগবে না – হালাল প্রোডাক্ট এ তাদের অায়টা হালালই হবে
.
সেঃ ভাই আডোবি লিগ্যালি আপনাকে ৩০ দিনের জন্য ট্রাইল দিয়েছে, আপনি যেকোন ট্রিক ইউজ করে ট্রাইল বৃদ্ধি করাই অবৈধ । তারা কেন আপনাকে ৩০ দিন দিয়েছে ? ৩০ দিন ইউজ করে দেখবেন ভাল লাগলে কিনবেন । নতুন জিমেইল ইউজ করা, কিংবা ট্রাইল রিসেট ইউজ করা বা ক্র্যাক সব ই অবৈধ । তারা কোথাও তাদের টার্মস এ বলেনাই আপনি ট্রাইল রিসেট করতে পারবেন । তারা তো প্রোডাক্ট টা আপনাকে আজীবন ফ্রি দেয়ার জন্য বানায় নি । আপনি কিনবেন তার জন্য বানিয়েছে । এর পর মার্স বাই আম্যাজনে আপনি আপ্পুভ পেয়ে গেলে ভাল । কিন্তু অবৈধ ভাবে দেশ থেকে ডলার যে কোন ধরনের অ্যাড এর মাধ্যমে বাইরে পাচার করা অবৈধ । আপনি যদি পেপালে পেমেন্ট আনেন অবৈধ কারন পেপাল এর টাকা দেশিও ব্যাংকে আনা যায় না ফলে সরকার ট্যাক্স পায় না, আপনি ট্যাক্স ফাকি দিচ্ছেন, আবার যেহেতু পেপাল বাংলাদেশ সাপোর্ট ই করেনা তাই পেপাল ইউজ করাই অবৈধ । আবার আপনি যদি পেয়নিয়র এর টাকা ব্যাংকে না এনে কারো কাছে সেল করে দেন তাহলেও সরকার ট্যাক্স পায় না তাই এটা অবৈধ । আর অ্যাফিলিয়েট করতে কিছু না কিছু তো লাগেই আপনি যদি ডোমেইন হোস্টিং কেনার জন্য দেশ এর টাকা ডলার আকারে সরকারের পারমিশন ছাড়া বিদেশী কোম্পানিকে দেন সেটা অবৈধ ।
.
আমিঃ অ্যাকুয়া কার্ড সরকার পার্মিশন দিয়েছে যেটা দিয়ে ডমেই হোস্টিং কেনা যায় – অাল্লাহ যদি সেল পাওয়ায় পাইওনিয়রেই এরপর ব্যাংক হয়েই ক্যাশ হবে – সেল পেলেই ৭৯$ এর অ্যাডবি কিনে ফেলবো ইনশাহ অাল্লাহ – অামার দেখা অনেকে অাছে অনেকে যারা সব সফ্টওয়ার কিনেই ব্যাবহার করে – তাই সবার ইনকাম হারাম না
.
সেঃ যারা সব কিনে সকল নিয়ম কানুন মেনে কাজ করে আয় করে তাদের টা হারাম একবার ও বলিনাই । তবে নতুন জিমেইল ইউজ না করে কিনে নেবেন, নতুন এই সিধান্তের জন্য অভিনন্দন । তবে ৩০ দিনের পর হারাম ভাবে ইউজ করে সেই হারাম টাকা দিয়ে আডোবি কিনে ইউজ করলে তার থেকে যা ইনকাম হবে সেটা কি হালাল হবে ? তার চেয়ে বরং ৩০ পর ই কিনে ফেলুন যেভাবে ইনকাম করার আগেই ল্যাপটপ/ পিসি কিনেছেন বা ইন্টারনেট বিল দিচ্ছেন 
.
আমিঃ ধন্যবাদ – অার অামার জন্য খুশির ব্যাপার ৯০০০ টাকায় কেনা অ্যাডবি ডিক্স উপহার পেয়েছি – অালহাম্দুল্লিল্লাহ – অাপনিও লুমিনো৫ ৪৯৯$ এর সফ্টায়র ফ্রী দিচ্ছেন – ভালো লাগছে ( তার আর জবাব নেই ) 
.
অন্যঃ মোস্তাফা জব্বার বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের একটা সেমিনারে বলেছিলেন- বিল গেটস চীনে তাঁর ব্যবসা সম্প্রসারণ করবেন। সহকারীকে এই তথ্যটা জানাতেই সহকারী বললেন- স্যার, চীনের বেশিরভাগ ইউজাররা তো মাইক্রোসফট ফ্রিতে ব্যবহার করে, ওখানে ব্যবসা সম্প্রসারণ করবেন কেন?

জবাবে বিল গেটস বলেছিলেন- ফ্রিতে ব্যবহারের সুযোগ রেখেছি বলেই ওরা ফ্রিতে ব্যবহার করতে পারছে। আমি চাই ফ্রিতে হলেও সবাই যেন মাইক্রোসফটেররটাই ব্যবহার করে, অন্যদেরটা নয়।

বিল গেটসের বক্তব্য থেকে কী বুঝলেন?
.
সেঃ e theke bujha jay.. Bill gates chorer churi kora thekeo profit kore… kintu tai bole churi korar license dey nai..
.
অন্যঃ এটা একটা ব্যবসায়িক কৌশল, দীর্ঘসময় ধরে যে কোম্পানির সফটওয়্যার ব্যবহার করবেন, একটা সময় পরে পেইড চালু করলে, বাধ্য হয়ে আপনাকে পেইডই ইউজ করতে হবে।

উদ্যোক্তাদের ভাবনাগুলো মূলত দীর্ঘমেয়াদী… ( তার আর জবাব নেই )
.
অন্যঃ যতটা সম্ভব হালাল ইনকামের চেষ্টা করতে হবে! আমরা অভাবের কারণে এইভাবে ইউজ করতে মূলত বাধ্য! পোস্টের মাধ্যমে যেনো এমন কিছু প্রকাশ না পায় যে তারা সবই তো হারাম সূতরাং পাইকারি হারে সব কাজ করি! আমি যেমন cl এর কাজ অথবা পরনো ভিডিওর কাজ থেকে নিজেকে বিরত রাখতেই পারি! কেননা এই গুলো হারাম মানি! আপনার পোস্টের লজিক অনুযায়ী সবই হারাম কিন্তু সব হারাম আমাদের জন্য সমান ক্ষতির কারন হবেনা ইংশাআল্লাহ!
.
সেঃ অভাবে থাকলে হারাম কাজ করা কি জায়েজ আছে ? যেমন আমি অভাবের কারণে একটা ল্যাপটপ চুরি আনলাম সেইটা দিয়া কাজ করে কাজ করে ইনকাম করলাম । অথবা অভাবের কারণে কারো বাসা থেকে জিনিস পত্র চুরি বিক্রি করে রিজিক জোগার করলাম ?
.
অন্যঃ ভাই বললাম কি? আর বুঝলেন কি? আমি বললাম বাধ্যবাধকতার কথা! অভাব যদি আপনাকে বাধ্য করে তবে শুকুরের হারাম গোস্তও হালাল হয়ে যায় ঠিক যতটুকু খাইতে আপনি বাধ্য হবেন ততটুকু!
.
অন্য ঃ অসম্ভব সুন্দর করে বলা কথা গুলো। অনেকের সামর্থ্য থাকার পরও কেনে না। আর যাদের সামর্থ্য নাই তাদের সামর্থ্যবান হওয়ার জন্য চেষ্টা করা। এবং মোটা মোটি সামর্থ্য হলেই অবশ্যই সেটা কিনে নেয়া। নাহলে তাদের ক্ষতির কারন হতে হবে। আমি আমার সামর্থ্যের মাঝে যা পারি কিনেই ব্যবহার করি। আর সব সময় চেষ্টায় আছি কিনবার আল্লাহ্ তায়ালা সামর্থ্য দান করুন। ইনশা আল্লাহ্ সব কিছু কিনেই ব্যাবহার করবো।
.
সেঃ ( মজা নিয়ে ) কিন্তু কেনার আগে যা ইউজ করছেন ফ্রি সব হারাম 
.
অন্যঃ হারাম কি না নিশ্চিত ভাবে বলতে পারছি না। যদি হারমই হতো তাহলে- জ্ঞান অর্জন শুধু মাত্র বিত্ববানদের জন্যই হতো। গরীবের জন্য না। কারন গরীব মানুষ সব লেখা পড়ার উপকরন কিনতে পারেনা তারা অন্যের বই ধার নিয়ে পরে এবং বিশেষ প্রয়োজনে ফটো কপি বা লিখে নেয় তাহলে সেটাও হারাম নয় কি? এবং এর মাধ্যমে যে চাকুরী করে সেখান থেকে অর্জিত অর্থও হারাম, নয় কি? বাংলাদেশের অসংখ্য মানুষ এবাবে লেখাপড়া করেছে। আমার বাবা তার জন্য যে বই কিনতেন সে বই তারা ৫ ভাই বোন পড়তেন। আমাদের সময়ও কিছু বই ভাইয়ার জন্য কে না হলেও সেটা আমিও পড়তাম। বিশেষ করে গল্প বা আউট বুক সেগুলো তো এক বন্ধু কিনলে সবাই শেয়ার করে সেটাও হারাম হয়ে যায়। এভাবে ভাবলে শুধু বড়লোকদের জন্যই দুনিয়া, আর যাদের অর্থ নাই তাহলে তাদের জন্য সব কিছুই হারাম। এগুলো ভেবে দেখার বিষয়। 
বিল গ্রেট্স এক সময় বলেছিলে “ আপনারা উইন্ডোজ ব্যবহার করেন যদি কিনে না ব্যবহার করতে পারেন তাহলেও উইন্ডোজই ব্যবহার করেন” এটা ১৯৯৭ সালে প্রযুক্তি বিষয়ক এক সেমিনারে একজন জ্ঞানী ব্যাক্তি বলেছিলেন। জামিলুর রেজা স্যার অথবা মোস্তফা জব্বার স্যার দুজনের একজন হবে। এবং মোস্তফা জব্বার স্যারও একসময় তার বিজয় সফ্টওয়্যার নিয়েও এমনটাই বলেছিলেন।
তাহলে অপারেটিং সিসটেম, অফিস এবং বিজয় এই তিনটি সফ্টওয়্যার ব্যাবহারে কোন সমস্যা নাই। একটু ভেবে দেখবেন।
আর যদি মাইক্রোসফ্ট কর্পোরেশন চায় তাহলে দুনিয়ার একজন মানুষও পারবে না তাদের প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে। তাদের জন্য খুব সহজ ব্যাপার। শুধু একটা আপডেট। ইন্টারনেট কানেক্ট করলেই সব শেষ। যা তাদের জন্য অল্প সময়ের ব্যপার। 
একবার ভেবে দেখবেন কি ব্যাপার টা? (আরো কয়েকটা কমেন্ট আছে এর পরে ) 
.
আমিঃ চারিদিকে সবই হারাম – সরকার হাজার কোটি টাকা লোন এনে দেশের বিভিন্ন কাজ করছে – আর সেই লোন এর সুধ ও আসল শোধ করছে দেশের জনগনের টাকা রিসাক্লিং করে । এর মানে কি দ্বারালো ? আমরা সাবাই কোম বেশি হারাম এর সঙ্গে জড়িত । আপনার অবস্থা কেমন যানি না । তবে বিষয় টা মনে হচ্ছে এমন,, এক জনের গাছ থেকে লেবু চুরি ও হারাম ব্যাংক কে হাজার হাজার মানুষের সঞ্চিত টাকাও চুরি করা হারাম। এর দুইটাই চুরি দুইটাই হারাম । এখন আপনি কি চাই বেন ? যে আপনার গাছের লেবু চুরি করেছে সে আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টও চুরি করুক ?? ইসলাম সহজ । প্রয়জনে জীবন বাচানোর তাগিদে হারাম মৃত পশুর গোস্ত খাওয়া , হারাম পশু খাওয়া জায়েজ করেছে । হারাম বস্তু দ্বারা তৈরী ঔষুধ বিপদের সময় ব্যাবহা জায়েজ। এখন বিষয় এমন না বরাবর এভাবেই চলতে হবে। হালাল এর রাস্তা খুজে বের করতে হবে । আপনি যদি তর্কে গুয়ার্তুমি করতেই থাকেন আপনা কে বুঝানো যাবে না । সবাইকে বোঝানোও যায় না। ধরুন আপনি হারম উপর্জনই করছেন । সেটা ধরুন কারো পকেট চুরি করা । ( মাফ করবেন উদাহারনের জন্য বলছি ) এটা হারাম । পুলিশে ধরা খেলেন ৩ মাস জেল হলো বেরিয়ে এলেন । এটা হারাম কাজ ছিলো । আপনি কাউ কে হত্যা করলে । এটাও তো হারাম , চুরিও হারাম । এখন কথা হলো চুরির শাস্তি ৩ মাস ছিলো । এটা র সাজা কি ? যাবত জীবন অথবা ফাসি । মানে আমি যেটা বলতে চাইছি, আমার দারা ছোট ছোট হারাম হচ্ছে বলে আমি বড় আয়ের ‍জন্য বড় বড় হারাম কাজ করবো ?? যুক্তি তো হারম তো হারাম’ই । এটা কখনোই এমন নয় । সর্বচ্চ চেষ্টা করে যেতে হবে হালাল উপার্যন করার । আল্লাহ সন্তুষ্ট অর্জনের মাধ্যমে হালাল ইনকামের পথ খুৃজে বের করার । অাল্লাহ আমাদের সকল কে দ্রুত হালাল ইনকাম করার তাওফিক দান করুক ।

0Shares

Check Also

আমাদের নিখুঁত পরিকল্পনাগুলো কেন ব্যর্থ হয়! | Bangla1news.com

আমাদের নিখুঁত পরিকল্পনাগুলো কেন ব্যর্থ হয়! | Bangla1news.com

আমাদের নিখুঁত পরিকল্পনাগুলো কেন ব্যর্থ হয়! | Bangla1news.com

‘মানুষ’ চেনার ব্যাপারে ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহুর বেশ চমৎকার একটা ঘটনা । আরিফ আজাদ

‘মানুষ’ চেনার ব্যাপারে ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহুর বেশ চমৎকার একটা ঘটনা আছে। একবার এক লোক এসে …

2 comments

  1. অনলাইন ইনকাম সম্পর্কিত আর্টিকেল লেখার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ.আশা করছি এই আর্টিকেলটি আমাদের কাজে লাগবে.

  2. আরমান হোসেন শাওন

    কথোপকথন শুনে ভাল লাগল। অনেক কিছু জানতে পারলাম। ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *