নবী (সাঃ) এর উপর ভালোবাসার অসাধারন গল্প ।

0
7

অনেক গল্প জিবনে পড়ছেন । এই গল্পটাও পইড়েন। আমাদের প্রিয় নবীজী হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) এর একজন কালো সাহাবি ছিলো ,সকল সাহাবির মধ্যে সেই বেশি কালো , কিন্তু নবীজী(সাঃ)এর ভালোবাসায় সর্বদা জীবন দিতে প্রস্তুত , সেও সাহসি সাহাবির মধ্যে একজন , প্রিয় নবীজি(সাঃ) তাকে অনেক ভালো বাসতেন  । ।

কদিন নবিজী(সাঃ) বললো – “কালো সাহাবি তুমি সারাক্ষণ আমার সাথেই থাক- তোমার কাছে আমি কিছু জানতে চাই।”নবিজী (সাঃ)এর কাছে মাথা নিছু করে কালো সাহাবি বলল -” হুজুর আমার জান হাজির আপনি শুধু বলুন কি জানতে চান” – নবীজী বলল তোমার বিয়ের সময় হয়েছে -তুমি কি তার জন্য প্রস্তুত । কালো সাহাবি মাথা নেরে বলল , হুজুর আমি যে এত কালো আমার কাছে কে মেয়ে বিয়ে দেবে – নবীজী (সাঃ) বলল তুমি বিয়ে করবে কিনা বল তোমার জন্য আমি মেয়ে দেখবো , কথাটি শুনে কালো সাহাবি খুশিতে কেঁদে ফেললো , হুজুর আপনি আমার জন্য মেয়ে দেখবেন –  এর চেয়ে আমার কাছে বড় আর কি হতে পারে, আমি রাজি। । নবিজী(সাঃ) একটি পত্র লিখে কালো সাহাবির হাতে দিয়ে বললেন, “এই পত্রটি মদিনার বড় বাড়িতে গিয়ে , মালিকের হাতে দিয়ে উত্তর জেনে তার পরে আসবে – কালো সাহাবি জানে না এর ভিতরে কি
লেখা আছে – নবীজী(সাঃ)এর কথা অনুযায়ী পত্র খানি নিয়ে মদিনার বড় বাড়ির মালিকের হাতে দিল ।নবীজী(সাঃ)এর কথা শুনে
তারাতারি পত্রটি খোলে ফেললো । 

এর মধ্যে লেখা আছে __________  আসসালামু আলাইকুম আমি হযরত মোহাম্মদ সাঃ আপনার কাছে আমার কালো সাহাবির জন্য আপনার মেয়ের বিয়ের প্রস্তাব দিলাম । আশা করি আমার প্রস্তাব আপনি গ্রহণ করবেন এবং
আমার কালো সাহাবির সাথে আপনার সুন্দরী মেয়ের বিবাহ দিবেন ,
___________ ইতি হযরত মোহাম্মদ(সাঃ)। 

বড় বাড়ির মালিক নবীজী(সাঃ)এর কথা শুনে কেঁদে ফেললো – আমার এক মাত্র মেয়ে -মদিনায় যাকে হুরে
মদিনা বলে চিনে______ ( কিতাবে আছে মেয়েটি এত সুন্দর যার কারনে সবাই তাকে হুরে মদিনা বলে ডাকতো)_______
এখন আমি কি করি নবীজী (সাঃ)বলেছে আনন্দের কথা কিন্তু ছেলেটি যে অনেক কালো – বিভিন্ন চিন্তায় মালিক চিন্তিত , কালো
সাহাবি বলল নবীজী(সাঃ) কি লিখেছেন – আমাকে বলেছেন উত্তর নিয়ে যেতে – মালিক বলল নবীজী (সাঃ)বলেছেন তোমার সাথে আমার মেয়ে হুরকে বিয়ে দেওয়ার জন্য বাবা তুমি এখন যাও-নবীজী(সাঃ)কে বলিয় আমি আমার মেয়ের সাথে পরামর্শ করে খবর পাঠিয়ে দেব – নবীজী(সাঃ)এর কালো সাহাবি মন খারাপ করে ফিরে যাচ্ছে । এমন সময় ঐ মেয়েটি দৌড়ে এসে বলল বাবা দেখলাম একটি লোক এলে হাসিমুখে – কিন্তু যাওয়ার সময় মন খারাপ করে যাচ্ছে কারন কি???? বাবা মেয়ের কাছে সব খুলে বললো – কথাটা শুনে মেয়েটি খুশিতে আত্মা হারা হয়ে বলল বাবা কি বলেছেন – 

নবীজী (সাঃ) পত্র লিখেছেন আমার বিয়ার প্রস্তাব এর জন্য – আর আপনি ফিরিয়ে দিলেন বাবা ঐ সাহাবি
নবীজী(সাঃ)এর কাছে পৌছার আগেই তাকে ফিরিয়ে নিয়ে আসুন –  না হয় যে আল্লাহর কাছে আমরা অপরাধী হয়ে যাবো । বাবা নবীজী (সাঃ)পত্র লিখেছেন – এতে মনে হয় মদিনার সব চেয়ে মূল্যবান ও সূ ভাগ্যবান মেয়ে আমি – মেয়ের মুখে কথাটি শুনে বাবা আলহামদুলিল্লাহ্ বলে ঐ সাহাবি কে ফিরিয়ে নিয়ে এল – বলল তুমি যে আমার মেয়েকে বিয়ে করবে , দেন মহর হিসেবে কি দেবে… ???

কালো সাহাবি বল্ল আমার কাছে নবীজী(সাঃ) এর ভালোবাসা ছাড়া
আর কিছুই নেই – ঐ মেয়েটি বল্ল বাবা  আপনারতো অনেক টাকা আজ নবীজী
(সাঃ)এর ভালোবাসায় কিছু টাকা দেনমহরের জন্য ওকে দিয়ে দিন – মালিক আরো বল্ল বিয়ে যে করবে – কিছু কেনা কাটা করেছ – আমার মেয়েকে সাজানোর জন্য – কালো সাহাবির উত্তর আমার কাছে কোন টাকা নেই – ঐ মেয়েটি বল্ল বাবা – নবীজী(সাঃ)এর ভালোবাসার খাতিরে বিয়ের কেনা কাটার জন্য ও কিছু টাকা দিয়ে দিন । অবশেষে মদিনার বড় মালিক নবীজী (সাঃ)এর ভালোবাসার খাতিরে – কালো সাহাবির হাতে কিছু টাকা দিয়ে বল্ল যাও বিয়ের বাজার করে নিয়ে আসো – আজকের ভিতরে আমি নবীজী(সাঃ)এর কথায় আমার সুন্দরী মেয়ের সাথে তোমার বিয়ে দেব ।
নবীজী(সাঃ)এর কালো সাহাবি মনের আনন্দে বিয়ের বাজার করতে রওনা হলো , বাজারে গিয়ে কিছু কেনা কাটাও করে – হঠাৎ দেখে মানুষের দৌড়া দৌড়ি – কালো সাহাবি বলল কি হলো সবাই এমন করে দৌড়াচ্ছে কেন ??? দোকানের মালিক বলল তুমি কি কিনবে পরে এসো – আমাদের মদিনার সম্পদ – মুসলিম বিশ্বের রহমত – হযরত মোহাম্মদ (সাঃ)কে শত্রুরা আক্রমণ করেছে , এই বলে দোকান বন্ধ করে চলে গেল । তখন কালো সাহাবি অন্য দোকানে গিয়ে – বিয়ের বাজারের টাকা দিয়ে একটি তরবারি কিনলো, হঠাৎ আবার মনে হলো মদিনার সুন্দরী মেয়ে তার জন্য অপেক্ষা করছে – নিজের মনকে বুঝালো যেই নবীজী(সাঃ)না হলে আমি হতাম না – দুনিয়া ও হতো না সেই নবীর চেয়ে সুন্দরী মেয়ে আমার কাছে বড় নয়, এই বলে নবীজী(সাঃ)এর কালো সাহাবি দৌড়ে যুদ্ধের ময়দানে চলে গেল ।

_______ কিতাবে আছে ঐ যুদ্ধে নবীজী (সাঃ)এর ৭০ জন সাহাবি শহীদ হয়েছে , তার মধ্যে কালো সাহাবি একজন । নবীজী (সাঃ)অশ্রুসিক্ত হয়ে বলল – আমার আদরের সাহাবিদের কে রক্ত মাখা অবস্হায় দাফন করে দাও – কিয়ামতের ময়দানে আমি আল্লাহর কাছে তাদের রক্ত মাখা শরীর দেখিয়ে – কোটি কোটি গুনাগার উম্মেতের নাবাজাতের দাবি করবো ।

হঠাৎ নবীজী(সাঃ)এর চোখ পরে কালো সাহাবির দিকে – জিহবা কামুর দিয়ে রক্ত মাখা হয়ে পরে আছে
– নবীজী(সাঃ)এর চিৎকার দিয়ে বলল – এই আমার কালো সাহাবির লাশ – তার আজকে বিয়ে হওয়ার কথা ছিলো , কয়েকজন সাহাবি বলল হুজুর আপনার কালো সাহাবি বিয়ের বাজার করতে গিয়ে – যখন শুনতে পেলো , শত্রুরা আপনাকে আক্রমণ করেছে , তখন সে যুদ্ধের বাজার করেছে । নবীজী(সাঃ)কাঁন্না অবস্হায় কালো সাহাবির কবরের ভিতরে তাকালো – কিছুক্ষণ পর হাসিমুখে বলল দাও তোমরা , আমার কালো সাহাবির দাফন করে দাও – সাহাবিরা বলল হুজুর বেয়াদবি মাপ করবেন – আপনি কাঁন্না অবস্হা কালো সাহাবির দিকে তাকালেন – আবার হাসিমুখে দাফন করতে বললেন – কারনটি বলবেন হুজুর । তাহলে শুন আমার কালো সাহাবির বিয়ের বাজার দিয়ে যুদ্ধের বাজার করেছে – আমার ভালোবাসায় ইসলাম এর পথে শহীদ হয়েছে – আমি তাকিয়ে দেখি ঐ হুরে মদিনা বেহেস্তি হুর হয়ে তার সেবা করছে ।
_____…….. সুবাহানআল্লাহ,,,,,

 

সংগ্রহঃ এসো বন্ধু কোরানের পথে

Facebook Comments
1Shares

LEAVE A REPLY