❤ জান্নাতী হুরদের সাথে সহবাস ❤

0
12

❤  জান্নাতী তরুণীদের ভালবাসার ধরণ এবং যৌনসম্ভোগে তাদের দক্ষতা:আল্লাহ জান্নাতী রমণীদের  এভাবে বর্ণনা করেন,

❤  “আচরণে আবেদনময়ী এবং বয়সে সমান” কিছু ইসলামি বিশেষজ্ঞ ‘উরুব’ শব্দের অর্থ দুইভাবে করেছেন । একটি ব্যাখ্যা হচ্ছে তারা স্বামীদের প্রতি গভীর প্রেম নিবেদন করবে এবং অন্য  একটি ব্যাখ্যায় আছে যে, তারা তাদের স্বামীদের  সাথে যৌন মিলনেবিশেষ দক্ষতা প্রদর্শন করবে ।.

❤  শুধু কুমারীদের সাথে যৌনমিলন:আল্লাহ বলেন,“কোন মানব এবং জ্বীন (এ যুবতীদের) ইতোপূর্বে স্পর্শ করেনি । তাহলে (হে মানুষ ও জ্বীন) তোমরা উভয়ে তোমাদের প্রভুর কোন দানকে অস্বীকার করবে ।”.এ যুবতীদের কুমারী হবার কারণ হলো, মানুষ সাধারনত কুমারীদের সাথে যৌনসঙ্গম করে বেশি আনন্দ উপভোগ করে থাকে ।

❤ যেভাবে উপরের আয়াতে উল্লেখ হয়েছে যে, আল্লাহ জান্নাতী নারীদেরকেও কুমারী করে তৈরী করবেন ।.ইমাম রাযী (রহঃ) এ আয়াতের উপর একটি মন্তব্য করে বলেন যে, “আল্লাহ এখানে পৃথিবীর যৌনমিলনের কথা পরক্ষ শব্দে উল্লেখ করেছেন । যাহোক এ আয়াতে পরকাল জীবনের যৌনমিলনের কথা পরিষ্কার ও সরাসরি শব্দে উল্লেখ করেছেন । এর উদ্দেশ্য হলো এটা বুঝানো যে, পৃথিবীর যৌনসঙ্গম দোষমুক্ত নয় এবং নিখুঁতও নয় ।

❤ অন্যদিকে আখিরাতের যৌনমিলন নিখুঁত ও সম্পূর্ন দোষমুক্ত ।আবু হুরাইরাহ (রধিঃ) বর্ণনা করেন যে, রাসুল (সাঃ) জিজ্ঞেস করা হলো, “জান্নাতে কি আমাদের স্ত্রীদের সাথে যৌনমিলন হবে?” তিনি উত্তরে বলেন, “একজন জান্নাতী এক সকালে ১০০ কুমারী তরুণীর সাথে যৌনসঙ্গম করবে ।”.জান্নাতী যখনই তার স্ত্রীর কাছে যাবে তখনই তাকে কুমারী পাবে:

❤ আবূ হুরাইরাহ (রধিঃ) বর্ণনা করেন যে, রাসুল (সাঃ) কে জিজ্ঞেস করা হলো, “জান্নাতে কি আমাদের জন্য যৌন মিলন থাকবে?”  তিনি উত্তরে বলেন, “যার হাতে আমার জীবন তার শপথ নিয়ে বলছি যে, হ্যাঁ, জোড়ালো ধাক্কার (সাথে যৌনসঙ্গম হবে) ।  যখন আমাদের একজন জান্নাতে তার স্ত্রীর সাথে রতিক্রিয়া শেষ করবে; সে (স্ত্রী) পুনরায় কুমারী এবং পবিত্র রমনী হয়ে যাবে ।”

❤❤  যৌন ইচ্ছার পূর্ন প্রশান্তি:

❤ মুহাম্মাদ ইবনু কা‘ব আল-করাজী (রহঃ) আনসারদের একজনের কাছ থেকে বর্ণনা করেন এবং যিনি আবু হুরাইরাহ (রধিঃ) হতে বর্ণনা করেন যে, রাসুল (সাঃ) আমাদেরকে বলেন,
“যিনি আমাকে সত্যসহকারে প্রেরণ করেছেন তাঁর শপথ
নিয়ে বলছি, তোমরা পৃথিবীতে তোমাদের বাড়ী এবং স্ত্রীদের সাথে জান্নাতী লোকদের চেয়ে বেশি পরিচেত নও ।

❤ এক ব্যক্তি জান্নাতের তার ৭২ জন স্ত্রীর কাছে আসবে যাদেরকে আল্লাহ বিশেষভাবে জান্নাতে তৈরি করেছেন এবং (তাদের) দু‘জন মানব নারী । মানব নারীরা হুরদের থেকে উত্তম হবে । কেননা, তারা পৃথিবীতে আল্লাহর ইবাদত (আদেশ-নিষেধ) করেছেন । জান্নতী ব্যক্তি ইয়াকুত বা পদ্মরাগ মণি পাথর দিয়ে তৈরি একটি রুমে তার প্রথম বউ-এর নিকট আসবে ।

❤ তারা (উভয়ে) মুক্তা দিয়ে সজ্জিত স্বর্ণের একটি খাটের উপর (মিলন করার জন্য শয়ণ করবে) । এ খাটের বিছানা হবে ৭০ ধরনের রেশম (silk) দ্বারা তৈরি ।.জান্নাতী ব্যক্তি তার (অপরূপ সুন্দরী) বউ-এর দু‘কাধের মধ্যে হাত রাখবে এবং বউ-এর কাপড়ের মধ্য দিয়ে তিনি তার হাত, স্ত্রীর চামড়া ও গোশত দেখতে পাবে । ঠিক যেভাবে এক ব্যক্তি পদ্মরাগ মণির মধ্যে সুতা দেখতে পারে তেমনি জান্নাতী তার স্ত্রীর কাপড় ভেদ করে হাড়ের মজ্জা পর্যন্ত দেখতে পাবে ।

❤ তার ভিতরে তার স্ত্রীর প্রতিচ্ছবি এবং স্ত্রীর ভিতর তার প্রতিচ্ছবি দেখা যাবে । তারা এভাবে (মিলিত) অবস্থায় থাকবে । তিনি আর স্ত্রীর দ্বারা ক্লান্ত হবেন না এবং তার স্ত্রীও তার দ্বারা ক্লান্ত হবেন না । প্রতিবারই জান্নাতী তাঁর স্ত্রীর কাছে এসে তাঁকে কুমারী পাবেন ।.তার যৌনাঙ্গ ক্লান্ত হবে না এবং তার বউ-এর যৌনাঙ্গও কোন প্রকার কষ্ট অনুভব করবে না । (তাদের এ যৌনমিলন চলা অবস্থায়) কেউ একজন ঘোষনা করবে, আমরা জানতে পেরেছি যে, “তোমার মধ্যে একঘেয়েমি আসবে না এবং তুমি তোমার বউকেও একঘেয়েমি দ্বারা ক্লান্ত করতে পারবে না । পুরুষ এবং নারী উভয়ের কারোই বীর্য বের হবে না । তোমার এই বউয়ের পাশে অন্যান্য বউ-রা আছে ।”

❤ সে (জান্নাতী) একের পর এক অন্যান্য বউ-এর কাছে যাবে । যখনই সে একজন বউয়ের কাছে যাবে তার সেই বউ তাকে বলবে, আল্লাহর শপথ নিয়ে বলছি, এ জান্নাতে আমার কাছে আপনার চেয়ে প্রিয় আর কিছুই নাই ।.হিসাম আত-তাঈ এবং সালিম বিন আমির (রধিঃ) বর্ণনা করেন যে, রাসুল (সাঃ) কে জান্নাতের যৌনমিলন সম্পর্কেপ্রশ্ন করা হলো । রাসুল (সাঃ) বলেন, এটা শক্তিশালী ইচ্ছা এবয় (শক্তিশালী) লিঙ্গ দ্বারা সম্পন্ন হবে যা (কখনো) ক্লান্ত হয় না ।

❤ নিশ্চয় একজন ব্যক্তি একজন জান্নাতী যুবতীর সাথে ৪০
বছর ব্যাপি যৌনসঙ্গম করবে । (এ সময়ের মধ্যে ঐ অবস্থা থেকে)
সে নড়বে না এবং সে ক্লান্তও হবে না । তার আত্মা যতক্ষন ইচ্ছা করবে এবং চোখ যতক্ষন না প্রশান্তি লাভ করবে ততক্ষন সে যৌনমিলন করতে থাকবে । (হারছ বিন আবি উসমান, ইবনে আবী হাতিম) ।.

❤ সূফি ইবনু মাতি‘ (রধিঃ) বর্ণনা করেন যে, রাসুল (সাঃ) বলেন,
নিশ্চয় জান্নাতে অসংখ্য নিয়ামতের মধ্যে একটি হলো জান্নাতীরা দ্রুতগামী প্রাণীতে চড়ে একজন অন্যজনের সাথে দেখা করতে যাবে । জিন ও লাগামসহ তাদের নিকট একটি ঘোড়া আনা হবে (যা চলার জন্য তৈরি থাকবে) । এই ঘোড়া মলমূত্র ত্যাগ করবে না । তারা এই ঘোড়ায় আরোহণ করে চলতে থাকবে যতক্ষন না তাঁরা আল্লাহর ইচ্ছা মত স্থানে পৌঁছেন । তারপর তারা এমন একটিমেঘের নিকট আসবে যে, উক্ত মেঘ এমন জিনিস ধারণ করবে যা কোন চোখ দেখেনি এবং কোন কান শোনেনি ।

❤ জান্নাতীরা এই মেঘকে তাদের ইচ্ছমত (নিয়ামত) বর্ষণ করতে বলবে । মেঘ তাদরে উপর (তাদের ইচ্ছামতো) অবিরাম বর্ষণ করতে থাকবে । (তাদের ইচ্ছামত) যতক্ষন না তারা এমন নিয়ামত লাভ করে যা তারা কোনদিন চিন্তাও করেনি ।তারপর আল্লাহ মৃদু বাতাস পাঠাবেন যা তাদের ডানে এবং বামে মৃগনাভির পাহাড় তৈরি করবে । জান্নাতীরা এটা তাদের ঘোড়ার কপালে এবং ঘাড়ে লাগাবে । তারা এই মৃগনাভি তাদের মাথায়ও ব্যবহার করবে ।

❤ প্রত্যেক ব্যক্তি তার চুলকে তাদের ইচ্ছামত লম্বা করবে । এই মৃগনাভি তাদের চুল, ঘোড়া এবং কাপড়ের অন্যান্য স্থানে লেগে থাকবে । তারা তাদের প্রাণীর উপর চড়ে চলতে থাকবে যতক্ষন পর্যন্ত না তারা এমন স্থানে পৌঁছে যা আল্লাহ ইচ্ছা করেন । তারপর হঠাৎ একজন (ভাষাহীন সুন্দরী যুবতী) নারী তাদের একজনকে ডেকে বলবে, ‘ও আল্লাহর বান্দা! তোমার কি আমাদের প্রতি কোন আগ্রহ নেই?’ উত্তরে বলবেন, ‘তুমি কি এবং কে তুমি?’ সে (সুন্দরী) উত্তরে বলবে, ‘আমি তোমার প্রিয়তমা স্ত্রী ।’

❤ জান্নাতী বলবে, ‘আমি তো তোমাকে চিনি না ।’ উক্ত সুন্দরী তরুণী বলবে, ‘তুমি কি জাননা যে, আল্লাহ বলেছিলেন যে, ‘কেউ জানেনা কি আনন্দ তাদের জন্য লুকানো রয়েছে তাদের সৎ কাজের পুরষ্কারস্বরূপ (কুরআন) ।’ জান্নাতী বলবে, ‘হ্যা, আমার প্রভুর শপথনিয়ে বলছি ।’ তারপর জান্নাতী তার এ স্ত্রীর সাথে ৪০ বছর (যৌনমিলন অবস্থায়) থাকবে । (এ যৌনসঙ্গম করা অবস্থায়) সে তার একমাত্র মনোযোগ থাকবে যে আনন্দ ও সম্মান সে পেয়েছে তার দিকে ।.

❤ কাসির ইবনু মুরবাহ (রহঃ) বলেন, “জান্নাতের অতিরিক্ত পুরষ্কারের (যেমন কুরআনের আয়াত এবং আমাদের কাছে আছে আরো অতিরিক্ত জান্নাতীদের জন্য) মধ্যে একটি হলো, মেঘ যা জান্নাতের অধিবাসীদের উপর আসবে । মেঘটি তাদেরকে বলবে, ‘তোমরা এমন কিছু ইচ্ছা কর যা আমি তোমাদের উপর বর্ষণ করব?’ এবং তারা যা ইচ্ছা করবে তা তাদের উপর বর্ষণ করা হবে । কাসীর বলেন, যদি আমাকে এ সুযোগ আল্লাহ তা‘আলা দান করেন, তাহলে নিশ্চয়ই আমি উক্ত মেঘকে সুন্দরী তরুণী বর্ষণ করতে বলব ।.

❤❤ যৌনসঙ্গমের ক্ষমতা বৃদ্ধি:

❤ যায়েদ বিন আরকান (রধিঃ) বর্ণনা করেন যে, একজন ইয়াহুদী রাসুল (সাঃ) এর কাছে আসল এবং বলল, “ও আবুল কাশেম!  আপনি দাবি করছেন যে, জান্নাতী মানুষ খাবে এবং পান করবে ।” রাসুল (সাঃ) বলেন, ‘যার হাতে আমার জীবন তার শপথ নিয়ে বলছি, জান্নাতের প্রত্যেক ব্যক্তিকে ১০০ লোকের মত খাওয়া, পান করা এবং যৌনমিলন করার ক্ষমতা দেওয়া হবে ।’.

❤ যেহেতু জান্নাতীদের অনেক স্ত্রী থাকবে, সুতরাং আল্লাহ মানুষের যৌনশক্তি বৃদ্ধি করে দিবেন যাতে করে তারা তাদের ইচ্ছামত সম্পূর্ণ তৃপ্তি লাভ করতে পারে ।

❤ হে আল্লাহ দুনিয়ার সব মেয়েদের ফেতনা থেকে বাচার জন্যে আমি আপনার কাছে  পানাহ চাচ্ছি

Facebook Comments
9Shares

LEAVE A REPLY