মাদের এই সুন্দর পৃথিবীতে মজার ও অবাক করা কতই না বাস্তবতা রয়েছে । রয়েছে পৃথিবীর অলঙ্কার মানুষ প্রজাতিরও অনেক অদ্ভুদ রুপ । এমনি কিছু মজার ব্যাক্তি নিয়ে আজ আলোচনা করবো ।

বিজ্ঞানের চিন্তা কে পেছনে ফেলে মানুষের শারিরীক কতই যে পরিবর্তন ও রকমারি অঙ্গ নিয়ে দিব্বি চলছে আজ সেরকমই একজন লোকের সম্পর্কে জানব আজ। ভারতে একজন অদ্ভুদ মানুষ আছেন যার নাম শ্রীধর কুল্লা । এই মানুষটি বাষোট্টি বছর ধরে আঙ্গুলের নখ কাটেন না। এতে তিনি গিনিস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড কমিটির তরফ থেকে “ পৃথিবীর লম্বা নখের অধিকারি ব্যাক্তি ” হিসাবে স্বীকৃতি পান।

 

তিনি ১৯৫২ সালের পর থেকে হাতের নখ কাটা বন্ধ করে দেন এবং ওয়ার্ল্ড রেকর্ড কমিটির তরফ থেকে “ পৃথিবীর লম্বা নখের অধিকারি ব্যাক্তি ” হিসাবে স্বীকৃতি দেয়ার পরে সে তার নখ কেটে ফেলে । এখানে একটি মজার বিষয় হচ্ছে, তার সব আঙ্গুলে নখ গুলো বরাবর লম্বা হলেও বুড়ো আঙ্গুলের নখ টা কয়েলের মত প্যাচানো ছিলো।

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের কর্মকর্তারা ভারতের মহারাষ্ট্রের ৭৮বছর বয়স্ক শ্রীধরের বাড়িতে যান এবং ভারতেই এটার পরিক্ষা নিরীক্ষা হয় এবং তার সঙ্গে ছবি তুলে তার সাথে দেখা করে আসে ।

তাকে প্রশ্ন করা হয়েছিলো,  এতো বড় বড় নখ তার জীবনে কেমন প্রভাব ফেলেছে ? শ্রীধর বলেন “ নখ গুলো অত্যন্ত  ভঙ্গুর, সহজে ভেঙ্গে যাবে বলে ঘুমের সময় খুব সতর্ক থাকতে হতো আমাকে । হাত সহজে নড়াতে পারতাম না, তাই প্রতিটা রাতের অর্থেক না ঘুমিয়ে কাটাতাম।

যাই হোক পৃথিবীতে একটি স্বীকৃতি তো রেখে যেতে পেরেছি যা আমাকে খুই আনন্দ দেয় ।

1Shares