ধর্ষন কেনো বাড়ছে ? জানলে অবাক হবেনই ।

৬ বছরের শিশু, আপাদমস্তক বোরখাবৃতা কিংবা ৬০ বছরের বৃদ্ধারা ধর্ষিত হওয়ার ১৩৮ বছরের পুরানো মেডিকেলীয় ব্যাখ্যা। রাশিয়ান বিজ্ঞানী পাভলভ এই ব্যাখ্যাটা দিয়ে গেছেন।

কেনো এমন ধর্ষন বেড়েই যাচ্ছে তার সুন্দর ব্যাখ্যা করা হয়েছে এই পোস্টটিতে । 

বিজ্ঞানী পাভলভ একদল কুকুরকে ল্যাবে বেঁধে রেখে দীর্ঘমেয়াদী বিভিন্ন ধরণের পরীক্ষা নিরিক্ষা করেছিলেন। তিনি
প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে তাদের খাবার দিতেন। কুকুরের সামনে থাকত খাবারের বাটি এবং আয়না। সেখানে পাভলভ কুকুরের আচরণ পর্যবেক্ষণ করতেন। প্রতিদিন ঠিক একই সময়গুলিতে কুকুর গুলিকে খাবার দেওয়া হত। পাভলভের সাথে থাকতেন তাঁর ল্যাব সহকারী। খাবার গ্রহণের সময় কুকুরের কী পরিমাণ লালা ঝরত সেটি একটি
কন্টেইনারে মাপা হত। ব্রেইনের স্বাভাবিক রিফ্লেক্স হল খাবার গ্রহণের সময় লালা ঝরা।
কিন্তু পাভলভ দেখলেন যে – খাবার গ্রহণ নয়, খাবার দেখেও এবার কুকুরের লালা ঝরতে শুরু করেছে। পাভলভ খাবার দেখে কুকুরের কী পরিমাণ লালা ঝরত সেটি ও কন্টেইনারে মাপার ব্যবস্থা করলেন। বেশ কিছু দিন যাওয়ার পর পাভলভ দেখলেন তিনি ল্যাবে ঢুকলেই কুকুরের লালা বের হচ্ছে। সাথে খাবার থাক আর না থাক।
পাভলভ এবার নিজে ল্যাবে না গিয়ে খাবার বিহীন অবস্থায় তাঁর ল্যাব সহকারীকে ল্যাবে পাঠালেন। ল্যাব
সহকারী অবাক হয়ে দেখলেন তাকে দেখে ও (ল্যাব সহকারী) দেখেও কুকুরের লালা
ঝরছে। পাভলভ এবার ভিন্ন কিছু করলেন। তিনি কুকুরকে খাবার দেওয়ার সাথে সাথে
একই সময়ে একটি ঘণ্টি বাজাতে থাকলেন। খাবার দেওয়া হচ্ছে এবং ঘন্টি বাজানো
হচ্ছে। এরপর পাভলভ এবং সহকারী একদিন খাবার ছাড়াই ল্যাবে আসলেন এবং ঘন্টি বাজাতে শুরু করলেন।
দেখলেন খাবার না দেওয়া সত্ত্বেও কুকুরগুলোর একই পরিমাণ লালা ক্ষরণ হচ্ছে। পাভলভ সিদ্ধান্তে আসলেন – খাবারের প্যাকেট, ল্যাব এসিস্টেন্ট, ঘন্টির শব্দ – এগুলি সব নিউট্রাল স্টিমুলেশন। এগুলির সাথে লালা ক্ষরণের সম্পর্ক নেই। কিন্তু কুকুর তার লার্নিং বিহেভিয়ারে খাবারের সাথে খাবারের প্যাকেট,
পাভলভ, ল্যাব সহকারী বা ঘণ্টার শব্দকে কো রিলেট করে ফেলেছে এবং খাবারের সাথে যা যা ঘটে সব কিছুকেই লালা ক্ষরণের উপাদান হিসেবে তার ব্রেইন ডিটেক্ট করছে। ব্রেইনের এই লার্নিং মেথডকে তিনি
“কন্ডিশনিং” এবং ‘কন্ডিশান্ড রিফ্লেক্স’ বলেছেন। অর্থাৎ ব্রেইন এমন একটি স্টিমুলেশনের প্রতি সাড়া দিচ্ছে, যেটিতে ব্রেইনের আদৌ রেস্পন্স করা উচিত না, কিন্তু করার কারন হচ্ছে ব্রেইন এই স্টিমুলেশনকে
আরেকটি স্টিমুলেশানের সাথে সম্পৃক্ত করে ফেলেছে।

৬ বছরের মেয়ে, বোরখাবৃতা মেয়ে কিংবা ৬০ বছরের বৃদ্ধা স্বাভাবিকভাবে যৌনানুভুতি সৃষ্টি করে না। কিন্তু লার্নিং
মেথডের কন্ডিশানিং এর কারনে একজন ধর্ষকের ব্রেইনে এটি মারাত্মক উদ্দীপক
হিসেবে কাজ করে। কীভাবে এই কন্ডিশানিং হচ্ছে? যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অফ হেলথের ডিরেক্টর ডঃ আলিয়াস বলেছেন, মানুষের পার্সোনালাটি লার্নিং হয় তিনটা প্রধান ফ্যাক্টর দ্বারা শিক্ষা, সঙ্গ এবং পরিবেশ।
আসুন আমরা দেখি শিক্ষা সঙ্গ এবং পরিবেশ থেকে আমরা মেয়েদের ব্যাপারে কি প্রি কনসেপ্সহান পাচ্ছি?
.
ক্লাস এইটে “নিজেকে জানো” বইতে ইয়াং পুলাপাইনকে কী শিখাচ্ছেন?  “পরস্পরের সম্মতিতে যৌন অনুভূতি প্রকাশ দৌষণীয় নয়। ক্লাস নাইনে “হাজার বছর ধরে” উপন্যাসে ইয়াং পুলাপাইনকে কি শিখিয়েছেন?
– হাজবেন্ডকে ফাঁকি দিয়ে অন্যের সাথে সহীহ পরকীয়ার কলা কৌশল। তের চৌদ্দ বছর বয়সে একটা ছেলে যখন
হাজার বছর ধরে উপন্যাস পড়ে এবং সেখানে টুনি মন্তুর প্রেমকাহিনী পড়তে পড়তে সে অবচেতনভাবে ছেলেটি নিজেকে মন্তু আর মেয়েকে টুনি ভাবে এবং এই ভাবনা নিউরোলজিক্যাল দৃষ্টিকোণ থেকে শুধু স্বাভাবিকই নয়, বরং না ভাবাটাই অস্বাভাবিক। ক্লাস ইলেভেনে “পদ্মা নদীর মাঝি উপন্যাসে ইয়াং পুলাপাইন কী
শিখিয়েছেন? – ওয়াইফকে ফাঁকি দিয়ে শালীর সাথে সহীহ পরকীয়ার কলা কৌশল। কুবের কপিলার সম্পর্ক পোড়ার পর, আপনি আপনার শালীকে কী চোখে দেখেন? বাংলা সাহিত্যের গল্প, নাটক, উপন্যাস,
কবিতায় নারীকে কী হিসেবে চিত্রিত করেছেন কবি সাহিত্যিকেরা? এই গল্প/ সাহিত্য আপনার মস্তিষ্কে কী ধরণের
চিত্রকল্প তৈরি করে? ক্লাস ইলেভেনে শকুন্তলা নিবন্ধে ইয়াং পুলাপাইনকে কি শিখিয়েছেন?
“শকুন্তলার অধরে নবপল্লবশোভার সম্পূর্ণ আবির্ভাব; বাহুযুগল কোমল বিটপের বিচিত্র শোভায় বিভূষিত; আর, নব যৌবন, বিকশিত কুসুমরাশির ন্যায়, সর্বাঙ্গ ব্যাপিয়া রহিয়াছে”। গাছের বাকলপড়া শকুন্তলার বর্ণনা আপনার মনের মধ্যে কী ধরণের ছবি উপস্থাপন করে?


– শকুন্তলার নগ্ন দেহের রগরগে বর্ণনা। শকুন্তলার দেহের বর্ণনার এই লাইনগুলো আপনার কল্পনার চিত্রনাট্যে কী ধরণের ছবি তুলে ধরে? সাহিত্যগুলোতে নারীকে কী রূপে উপস্থাপন করছেন? – ভোগ বিলাসের সামগ্রী।

বিজ্ঞাপনে নারীকে কী হিসেবে উপস্থাপন করছেন? – ভোগ পণ্য।
নাটক, টেলিফিল্ম, ছায়াছবিতে নারীকে কীভাবে উপস্থাপন করছেন? – ভোগপণ্য, কামনার প্রতিমা।

ছায়ানট, শিল্পকলা একাডেমি, চারুকলা, ললিতকলায় নারীকে কীভাবে উপস্থাপন করছেন?
– ভোগপণ্য, কামনার প্রতিমা।

মিডিয়ায় নারীকে কীভাবে উপস্থাপন করছেন?
– ভোগপণ্য, কামনার প্রতিমা।

এইডসের বিজ্ঞাপনে কী শেখাচ্ছেন? – বাঁচতে হলে জানতে হবে (মানামানির দরকার নেই, জানলেই হবে। ফার্স্ট ওয়ার্ল্ডে তো এইডসের জ্ঞান নেই বললেই চলে, তাই তাদের মধ্যে এত এত এইডস!)

একজন মিথ্যাবাদী, প্রতারক, উচ্চাভিলাষী, অল্প শিক্ষিত, চরিত্রহীন, পতিতা কোয়ালিটির মেয়েকে দেশের
সেরা মেয়ে করার নষ্ট প্রতিযোগিতা নিয়ে অন লাইন অফ লাইন মিডিয়ার গুষ্টি উদ্ধার আর তার পেছনে পতিতার খদ্দের দেশের তামাম বিখ্যাত সব কর্পোরেট হাউজের ছুটে চলার মাধ্যমে কী শেখাচ্ছেন জেনারেশন নেক্সটকে? (মিস বাংলাদেশ প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান নিয়ে কামড়াকামড়ি)

আমাদের সাহিত্য, নাটক, শিল্পকলা, বিজ্ঞাপন, সংস্কৃতি একটা ছেলের মনে একটা মেয়ে সম্পর্কে কি ধরণের ইমেজ
দিচ্ছে? এই একটা বিশেষ ছাঁচেই ছেলেদের cognition গড়ে উঠছে, এটাই ব্রেইনের স্মৃতিভান্ডারে জমা হচ্ছে। আসলে ব্রেইনের প্রি কনসেপশানে বা স্মৃতি ভান্ডারে নারী মানেই এমন একটি সত্ত্বা যাকে দিয়ে দেহের এবং মনের ক্ষুধা মেটানো যায়। এরপর যখন বলেন, নারীকে সম্মান করতে হবে, মায়ের/বোনের দৃষ্টিতে তাকাতে হবে, সেটা অনেকের ব্রেইন মেনে নেয় না। কারন পরিবেশ থেকে নারী সম্পর্কে ব্রেইনে একটা কনসেপ্টই এস্টাব্লিশ হয়েছে
– ভোগ্যপণ্য!

.
এই প্রি কনসেপশান থেকেই ৬ বছর, ৬০ বছরের নারী কিংবা বোরখাবৃতা, যেই হোক ধর্ষণেচ্ছা থেকে কেউই রেহায় পাচ্ছে না।
.
মেডিকেলীয় টার্মে প্রত্যেক রোগের তিনটি ডায়মেনশান আছে – Agent (রোগের কারন), Host (যার মধ্যে রোগের কারন বা জীবাণু আক্রমণ করে) এবং Environment (যে পরিবেশে রোগ হয়) উদাহরণ স্বরূপ টাইফয়েড রোগের
এজেন্ট হচ্ছে সালমনেলা ব্যাকোটেরিয়া হোস্ট – টাইফয়েড রোগী যিনি ব্যাক্টেরিয়া আক্রান্ত পানি/খাবার ভক্ষণ
করেছেন আর পরিবেশ হচ্ছে – দূষিত পানি/খাবার আবার সড়ক দুর্ঘটনার জন্য এজেন্ট – অদক্ষ/মাদকাসক্ত ড্রাইভার হোস্ট – ফিটনেস হীন গাড়ি আর এনভাইরনমেন্ট – আঁকাবাঁকা রাস্তা, রঙ পার্কিং, অস্পষ্ট রোড সাইন
এই এজেন্ট, হোস্ট এবং পরিবেশের মিথস্ক্রিয়ায় রোগ হয়।

ধর্ষণ একটি নৈতিক রোগ যার এজেন্ট – বিকৃতকাম নৈতিকতা বিবর্জিত পুরুষ হোস্ট – নারী আর পরিবেশ – যৌন সুড়সুড়িময় পরিবেশ যেটির কথা আগেই উল্লেখ করেছি। এখন মেডিকেলীয় পদ্ধতিতে টাইফয়েড নিয়ন্ত্রণের জন্য এন্টিবায়োটিক খেতে হবে (সালমনেলা


ব্যাক্টেরিয়াকে মেরে ফেলার জন্য তথা এজেন্ট কন্ট্রোল করার জন্য) দূষিত খাবার/পানি খাওয়া যাবে না
(হোস্ট কন্ট্রোল) এবং পানি দূষণ ও খাবার দূষণ বন্ধ করতে হবে (এনভাইরনমেন্ট কন্ট্রোল) তেমনি সড়ক দুর্ঘটনা বন্ধে ড্রাইভারদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্থি প্রদান, তাদের মধ্যে যথাযথ প্রশিক্ষণ (এজেন্ট কন্ট্রোল) ফিটনেস বিহীন গাড়ির রুট পারমিট বাতিল (হোস্ট কন্ট্রোল) আঁকাবাঁকা রাস্তা, রঙ পার্কিং, অস্পষ্ট রোড সাইন বন্ধ করতে হবে (এনভাইরনমেন্ট কন্ট্রোল) তেমনি ধর্ষণ বন্ধের জন্য দৃষ্টান্তমূলক উন্নত শাস্থি (সৌদি আরবের মত), পুরুষদের মধ্যে নৈতিক শিক্ষা জাগ্রত করা – এজেন্ট কন্ট্রোল নারীদের সভ্যভাবে চলতে উদ্ভুদ্ধ করণ (হোস্ট কন্ট্রোল) এবং নাটক, গান, গল্প সাহিত্য, বিজ্ঞাপনে নারীকে পণ্য রূপে উপস্থাপন বন্ধ করতে হবে (এনভাইরনমেন্ট কন্ট্রোল) আমার আছে এন্টিবায়োটিক, আমি ইচ্ছামত বিশুদ্ধ দূষিত সব খাব, কিন্তু টাইফয়েড হবে না – এটা হয় না তেমনি নৈতিকতাবোধ জাগ্রত না করে, নারীদের সভ্যভাবে চলতে না বলে, পরিবেশ নিয়ন্ত্রণ না করে, শুধু পুরুষদের
দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিয়ে ধর্ষণ বন্ধ হবে না। কারন আইনের দৌড় খুব সীমিত। সন্তান মাকে হত্যা করছে, মা সন্তানকে হত্যা করছে, স্বামী স্ত্রীকে হত্যা করছে, স্ত্রী স্বামীকে হত্যা করছে – আইন এখানে কী ই বা করবে? পাহারা দিয়ে, আইন করে অন্যায় বন্ধ করা যায় না যদি মূল্যবোধ জাগ্রত না হয়। ধর্ষণে প্রথম স্থান (রেফারেন্স
কমেন্টে) অধিকার করে যুক্তরাষ্ট্র আমাদের এই শিক্ষা ই দিচ্ছে।

লিখেছেনঃ- ডা. মো ইলিয়াস, রেসিডেন্ট, নিউরোলজি । লেখা সংগ্রহঃ সাদা এ্যাপ্রোন ফেসবুক পেজ থেকে ।

15Shares

Check Also

islamic news

“ভারতের সংখ্যালঘু মুসলমানদের বিভিন্ন অজুহাতে হত্যা নির্যাতন ও হয়রানি বন্ধে করণীয়” শীর্ষক গোলটেবিল হয়েছে জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটির আয়োজনে বৈঠকে সভাপতিত্ব করছেন সংগঠনের সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ …

A 5G-Enabled Foldable iPad

৫ জি আইপ্যাড আসছে। 5G-Enabled Foldable iPad

অ্যাপেল এমন একটি প্যাড নিয়ে আসছে যেটা ৫জি নেটওয়ার্ক সাপর্ট করবে । অ্যাপেলের এই নোটকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *