জনগণ নির্বাচনের নামে আর কোন প্রহসন দেখতে চায় না: খেলাফত মজলিস

খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরার সাধারণ অধিবেশন অনুষ্ঠিত

ঢাকা, ২৬ জানুয়ারী ২০১৮ঃ খেলাফত মজলিসের আমীর অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক বলেছেন, জনগণ দেশে নির্বাচনের নামে আর কোন প্রহসন দেখতে চায় না। ৫ জানুয়ারীর মত ভোট ও ভোটার বিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় থাকার চেষ্টা জনগণ কোনভাবেই মেনে নিবে না। দেশবাসী তাদের ভোটের অধিকার ফিরে পেতে চায়। গ্রহনযোগ্য জাতীয় নির্বাচনের জন্যে নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকারের প্রশ্নে সরকারকে কোন ছাড় দেয়া হবে না। দেশ ও জাতির কল্যাণ চাইলে সরকারকে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের অধিনে জাতীয় নির্বাচনের গণদাবী মেনে নিতে হবে। খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরার সাধারণ অধিবেশনে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মাওলানা ইসহাক বলেন, দেশের সর্বত্র ঘুষ, দুর্নীতি, হানাহানি, গুম, খুন, নৈতিক অবক্ষয় আজ চরম আকার ধারণ করেছে। জনপ্রতিনিধিত্বশীল সরকার, ন্যায় বিচার, আইনের শাসনের অভাবই এসব কর্মকান্ড ও অশান্তির মূল কারণ। এ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে ইসলামের সুমহান আদর্শের আলোকে সমাজ গঠন করতে হবে। ইসলামী আদর্শের আলোকে জাতিকে উদ্ভাসিত করতে হবে। সৎ ও আদর্শবান ব্যক্তিদেরকে জাতির নেতৃত্ব দানের জন্যে এগিয়ে আসতে হবে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে খেলাফত মজলিস তথা এর নেতা-কর্মীদের বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করতে হবে।

আজ শুক্রবার সকাল ৯টায় শাহজাহানপুরস্থ মাহববি আলী ইনস্টিটিউটে মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাকের সভাপতিত্বে ও মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদেরের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য পেশ করেন নায়েবে আমীর- মাওলানা সৈয়দ মজিবর রহমান, মাওলানা সাখাওয়াত হোসাইন, যুগ্মমহাসচিব- মাওলানা মুহাম্মদ শফিক উদ্দিন, এডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসাইন, শেখ গোলাম আসগর, মুহাম্মদ মুনতাসির আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক- ড. মোস্তাফিজুর রহমান ফয়সল, মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ শফিউল ্অলম, মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, মাওলানা এ কে এম আইউব আলী, প্রশিক্ষন সম্পাদক অধ্যাপক মহাম্মদ আবদুল হালিম, মাওলানা নোমান মাযহারী, অধ্যাপক মো: আবদুল জলিল, মাওলানা নূরুজ্জামান খান, কে এম নজরুল হক, মাওলানা নূরুল আলম আল-মামুন, মাস্টার সিরাজুল ইসলাম, মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন মিয়াজী, মাওলানা শামসুজ্জামান চৌধুরী, ডা: আবদুল্লাহ খান, এবিএম সিরাজুল মামুন, ডা: শরীফ মোহাম্মদ মোসাদ্দেক, ডাঃ এ এ তাওসিফ, মাস্টার আবদুল মজিদ, মাওলানা সৈয়দ মুশাহিদ আলী, অধ্যাপক বজলুর রহমান, মাওলানা সাঈদ আহমদ, মাওলানা আইউব আলী, হাফেজ মাওলানা জিন্নত আলী, অধ্যাপক মাওলানা এস এম খুরশীদ আলম, মাহবুব মোর্শেদ, মাওলানা আজিজুল হক, মাওলান রিয়াজূল হক কাসেমী, মাওলানা বোরহান উদ্দিন প্রমুখ।

অধিবেশনে একটি শোক প্রস্তাব ও চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে নিরপেক্ষ সরকারের অধিনে জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গ, চাল, ডাল, পিঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি ও আর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অস্থিরতা প্রসঙ্গ, প্রশ্নপত্র ফাঁস ও শিক্ষাঙ্গণে নৈরাজ্য প্রসঙ্গ, পবিত্র জেরুজালেমকে অবৈধ ইসরাইলের রাজধানী ঘোষনা প্রসঙ্গ, রোহিঙ্গা নির্যাতন ও বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ফেরৎ পাঠানো প্রসঙ্গে ৬টি প্রস্তাব গ্রহীত হয়।
অধিবেশনে সারাদেশের বিভিন্ন জেলা ও মহানগরী শাখার ডেলিগেটবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অীধবেশনে কেন্দ্রীয় সংগঠন ও সারাদেশের শাখাসমূহের বিগত ১ বছরের কাজের রিপোর্ট পেশ পর্যালোচনা, চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও দেশের বিভিন্ন সংসদীয় আসনে খেলাফত মজলিসের সম্ভাব্য প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রস্তুতি পর্যালোচনা করা হয়। অধিবেশনে সারা দেশে গণসংযোগ, ওলামা সম্মেলন ও তরবিয়তসহ বিভিন্ন প্রোগ্রামের কর্মসূচী ঘোষনা করা হয়।

তথ্য সূত্র:  khelafat-majlis.org

 

0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *