এই বিষয় গুলো মনে রাখুন কাজে আসবে

কিছু কিছু জিনিষ DU/BUET/DMC/IBA/HARVARD/MIT তে শিখায় না। কিন্তু যেইগুলা শিখায় না সেইগুলা আপনার কোর্স, ক্রেডিট, জিপিএ, বেতন, র্যাংক সবকিছু থেকে উপরে।

1. Being Humble/ Humility – আপনি সুন্দরি? ২০০০ সালের মিস ইউনিভার্স এর নাম মনে আছে? কেউ মনেও রাখে নাই তারে। আপনি CEO? কন দেখি মাল্টি বিলিয়ন ডলার Honda কোম্পানির ৪ নাম্বার CEO কে? কোন খবরই নাই বেচারার! আপনে বিসিএস/ মিলিটারি? হাহাহাহা ভাইরে! Gulf War 1 জয় করা আমেরিকান জেনারেল শোয়ার্জকফ এর কথা মনে আছে!??? ও কইছিলো, যুদ্ধের সময় ৫০ দেশের ৫০০,০০০ সৈনিক আমার কথায় নাচছে আর ১ বছর শেষে রিটায়ার করার পরে বাসার কাজের জন্য একটা প্লাম্বার ও পাই না! অহংকার করার অধিকার তো দূরের কথা, সেটার কোন যোগ্যতাও কোনদিনও আপনি অর্জন করতে পারবেন না! দুনিয়াতে বহু চ্যাম্পিয়ন দেখছি – আজ তার ৮০% মাটির তলে আর ২০% হাসপাতালে! অহংকার করার অধিকার শুধুমাত্র উপরের উনার – এইটারে যে টান দিছেন সে মরছেন। Humble থাকা মানে পাপোষ হইয়া থাকা না, Humble মানে বিশ্ব ব্রম্মান্ডের সামনে নিজের non existence কে হাসি মুখে মাইনা নেওয়া আর এইটা বোঝা যে যে মূহুর্তে আপনি অক্কা পাইছেন সেই মূহুর্তেই আপনার বিছানাতেও আপনার rotting corpse এর জায়গা নাই। সৃস্টিকর্তা এইজন্যই অধিকাংশ নবী রসুলদের অনাথ বানাইছেন, দুম্বা চড়াইছেন, গরীবিত্ব দান করছেন যাতে তারা humility আর humbleness এর শ্রেষ্ঠ উদাহরণ হন। তাছাড়া গান্ধী কে দেখেন, মার্টিন লুথার কিং কে দেখেন। শেখেন।

2. Being Thankful. আজ আমার বয়স ১৭,৯৪৮ দিন। প্রতিদিন গড়ে ৫ বেলা খাবার ধরলে আমি ৫০,০০০ এর বেশী meal খাইছি, কোন চিন্তা ছাড়া, কোন ধরনের দুশ্চিন্তা ছাড়া যে খাবার কোন্থেকে আসবে। ৭ বিলিয়ন লোকের মধ্যে আমি Top 5% এ। আমার বাবা মা এখনো আছেন একটা সুন্দর পরিবার আছে এবং যা যা চাইছি বা চাই নাই তাও আছে। আমি হাসপাতালে নাই, সুস্থ আছি। আমি দুনিয়ার Top.0.1% এ। কিন্তু এই খাবার এর জন্য, এই সুখের জন্য কয়বার সৃস্টিকর্তাকে ধন্যবাদ বলছি জানিনা। তাও আমি পাইয়াই যাইতাছি। অন্যদিকে আমি কারো কোন উপকার কইরা ধন্যবাদ না পাইলে মাথা গরম হইয়া যায়!!! ভাইরে, Thankful হইতে পয়সা লাগে না। Feel the awesome free gifts you get from God, affection from your parents, love from your family, the smile of your child – feel and appreciate EVERYTHING. শুধু মুখে থ্যাংক্স বইলেন না, mean it from the core of your heart.

3. Not Looking Back – মাছির চোখ কয়টা জানেন তো। হাজারখানেক! এই জন্যই ব্যাটারা চারদিকে দেখতে পারে। একটা মাছি মাইরা দেইখেন তো?! খুব চালাক! কিন্তু মানুষের মাত্র দুইটা চোখ-তাও আবার সামনে!!! পিছনে দেখতে পারেন না। এর কিন্তু একটা মর্তবা আছে। You were made to look forward, not back. যেইটা অতিত হইয়া গেছে, সেইটা শেষ হইয়া গেছে। তাকে ফিরানোর কোন scope বা power মানুষের নাই। সেইটা এখন সৃস্টিকর্তার কাছে। উনি ছাড়া তা আর বদলানোর কেউ অধিকার রাখেন না। তাই যে জিনিষ আপনার আর নয়, তা নিয়া চিন্তা করা পুরা বোকামি। মনে করেন কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট মারা গেছে! আপনে কি কাঁদবেন? কখনোই না। কারন ওই ব্যাটা আপনের কিছুই লাগে না। ঠিক তেমনি অতিতের ভুল, অতিত সম্পর্ক সব ভুইলা যান। সামনে চোখ। সামনেই তাকান। কে জানি বলছিলো, অতিত এর কথা চিন্তা কইরা অনেক বোকাই মরছে। অতিত কে এখনই Control-Alt-Delete মারেন।

পৃথিবীতে টাকা পয়সা বানানো, successful হইতে চাওয়া, ভালো পড়াশুনা বা ক্যারিয়ার গড়া তে কোন পাপ নাই। পাপ হইতেছে যখন শ্রেষ্ঠত্বর মাথায় আমি তখন Humility ভুইলা যাওয়া,Thankful না হওয়া আর নিজের খারাপ অতিত নিয়া মন দূষণ করা!

এ সব জিনিষ কোনদিন ও কোন Ivy League এ শেখানো possible না। কারন আপনের বিবেকের চেয়ে বড় Ivy League বানানো একটা অসম্ভব ব্যাপার।

কার্টেসী— সাব্বির আহসান,  সংগ্রহঃ সাদা এ্যাপ্রান

0Shares

Check Also

Nikola Tesla

নিকোলা টেসলা (Nikola Tesla)

A S Fardin Ahmed:  কিছু দিন আগে Nikola Tesla এবং তাঁর অনেক গুলো বিস্ময়কর আবিষ্কার …

একনজরে ডাঃ মোঃ ইব্রাহিম খলিল

ডাঃ মোঃ ইব্রাহিম খলিল, পিতাঃ মৃত ডাঃ আজিজুর রহমান। গ্রামঃ মুনসেফপুর, পোষ্টঃ মহিপুর, জেলাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ। পিতা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *